দুই সিজদার মাঝের দোয়া ,ফজিলত ও অর্থ সহ বাংলা অনুবাদ

নামাজে দুই সিজদার মাঝখানে পড়ার দোয়া রয়েছে। আমরা অনেকেই দুই সিজদার মাঝখানের দোয়া পড়ার  নিয়ম সম্পর্কে জানিনা। 

নামাজে দুই সিজদার মাঝের দোয়া নিয়ে অনেক মতামত আছে। অধিকাংশ ওলামায়ে কেরাম গণ বলেছেন দুই সিজদার মাঝের দোয়া পড়া হচ্ছে মুস্তাহাব।তাদের মতে এই দোয়া নামাজের ওয়াজিব এর অন্তর্ভুক্ত নয়। 

আবার হাম্বলী মাযহাবের মতে দুই সিজদার মাঝের দোয়া পড়া ওয়াজিব। কেননা হযরত মুহাম্মদ (সাঃ )নিয়মিত দুই সিজদার মাঝের দোয়া পড়তেন। আর নামাজের প্রতিটি আমল আল্লাহর জিকির থেকে খালি নয়। তাছাড়া সব গুলো জিকির ওয়াজিব। 

অধিকাংশ ওলামায়ে কেরাম গণ যে মন্তব্য করেছেন সেটি অধিক গ্রহনযোগ্য। দুই সেজদার মাঝের দোয়া ওয়াজিব হওয়ার ক্ষেত্রে কোনো স্পষ্ট দলিল নেই। অধিকাংশ ওলামায়ে কেরামের মতামত “দুই সিজদার মাঝের দোয়া পড়া মুস্তাহাব “ এই মতামত টি অধিক গ্রহণযোগ্য। 

অনেকেই মনে করেন দুই সিজদার মাঝখানের দোয়া না পড়লে নামাজ হবে  কিনা ?দুই সিজদার মাঝের দোয়া পড়া মুস্তাহাব  তাই পড়লেও নামাজ হবে না পড়লেও নামাজ হবে। তবে আমাদের উচিত দুই সিজদার মাঝের দোয়া জেনে দুই সিজদার মাঝে দোয়া পড়া।

 কারণ হযরত মুহাম্মদ (সাঃ )নিজেই এ দোয়া পড়তেন। তাই আমাদের ও উচিত দুই সিজদার মাঝখানে দোয়া পড়ে পূর্ণ নিয়মে নামাজ আদায় করা এবং মহানবি হযরত মুহাম্মদ সাল্লুল্লাহ আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর দেখানো পথ অনুস্বরণ  করা। 

হজরত ইবনে আব্বার রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম দুই সিজদার মাঝে বলতেন-
اَللّهُمَّ اغْفِرْلِيْ وَارْحَمْنِي وَاهْدِنِيْ وَعَافِنِيْ وَارْزُقْنِيْ

উচ্চারণ : আল্লাহুম্মাগফিরলি, ওয়ারহামনি, ওয়াহদিনি, ওয়া আফিনি, ওয়ারযুকনি। (মুসলিম, মিশকাত)

অর্থ : হে আল্লাহ আপনি আমাকে মাফ করুন, আমাকে রহম করুন, আমাকে হেদায়েত দান করুন, আমাকে শান্তি দান করুন এবং আমাকে রিজিক দান করুন।

দুই সিজদার মাঝের দোয়ার ফজিলত 

দুই সিজদার মাঝের দোয়া পড়ার ফজিলত অনেক। যদিও দুই সিজদার মাঝের দোয়া পড়া মুস্তাহাব তারপরেও এই দোয়ার ফজিলত ও গুরুত্ব অনেক বেশি। এই ছোট দোয়া পড়ার মাধ্যমে আল্লাহর কাছে অনেক কিছু চাওয়া হয়ে থাকে। 

এই দোয়ার অর্থ জানলেই বুঝতে পারি এই দোয়া পড়ার মাধ্যমে আল্লাহ তায়ালার কাছে কি কি চাওয়া হয়েছে। এই দোয়ার মাধ্যমে বলা হয়- মাফ করুন ,রহম করুন ,হেদায়েত দান  করুন ,রিজিক দান করুন। 

প্রতিদিন আমরা জানায় অজানায় অনেক গুনাহ  থাকি। এই দোয়া পড়ার মাধ্যমে আমরা আল্লাহ তায়ালার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করতে পারি। 

আল্লাহ তায়ালা এই ছোট দোয়াটি কবুল করলে নিশ্চয় আমাদের অনেক সওয়াব হবে। এই দোয়া পড়ার অছিলায় আমাদের রিজিক বৃদ্ধি পাবে এবং আমরা হেদায়েতের পথে আসতে পারব। 

তাছাড়াও বলা হয়েছে কুরআন শরীফের একটি হরফ পাঠ  করলে ১০টি নেকী  পাওয়া যায়। এই দোয়ার মাধ্যমে  আমাদের নেকীর পাল্লা ভারী হবে। 

 

Sharing Is Caring:

Leave a Comment